ভারতীয় পেসার খলিলকে আইসিসির ভর্ৎসনা!

0
38

ঘরের মাঠে উইন্ডিজের সাথে পাঁচ ম্যাচের একটি ওয়ানডে সিরিজ খেলছে ভারতীয় ক্রিকেট দল। সেই সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে মুম্বাইতে মুখোমুখি হয়েছিল দুই দল। যেখানে বেশ দাপট দেখিয়েই ২২৪ রানের বিশাল জয় তুলে নেয় স্বাগতিকরা। তবে এই ম্যাচে আইসিসি থেকে তিরস্কৃত হতে হয়েছে দলের নবীন ক্রিকেটার খলিল আহমেদকে। আইসিসি’র কোড অফ কনডাক্টের লেভেল ওয়ান ধারায় অভিযুক্ত হয়ে একটা ডিমেরিট পয়েন্টও জুটেছে এই পেসারের কপালে।


গত সোমবার হয়ে যাওয়া ওই ম্যাচে উইন্ডিজের ব্যাটিং লাইন-আপকে রীতিমত নাস্তানাবুদ করে ছেড়েছিলেন খালিল। পাঁচ ওভার বল করে ১৩ রান খরচ করে তুলে নিয়েছিলেন তিন উইকেট। ক্যারিবিয়ান ব্যাটিং লাইন-আপের মিডল অর্ডারটা বলতে গেলে একাই ধ্বসিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। মারলন স্যামুয়েলস, শিমরন হেটমেয়ার ও রভম্যান পাওয়েল; মূল্যবান উইকেটগুলো তুলে নিয়েছিলেন এই পেসার।

কিন্তু এমন অনবদ্য পারফরম্যান্সের পরেই আইসিসি’র ভর্ৎসনা হজম করতে হল তাঁকে। নিজের আচরণের জন্যই শাস্তি পেতে হল খালিলকে। ঘটনার সূত্রপাত উইন্ডিজের ইনিংসের ১৪ তম ওভারে। সেসময় নিজের তৃতীয় ওভারে বল হাতে আসেন খলিল, ফেরান মারলন স্যামুয়েলস। খালিল উইকেট নেওয়ার পরেই স্যামুয়েলসের দিকে আগ্রাসী ভাবে এগিয়ে এসেছিলেন। বিষয়টি চোখে পড়ে মাঠে থাকা দুই আম্পায়ার ইয়ান গোল্ড ও অনিল চৌধুরির।

তবে ম্যাচের পর অবশ্য খালিল নিজের দোষ শিকার করে নেন। তাইতো ওই ঘটনায় পরে আর কোনও শুনানির প্রয়োজন হয়নি। তবে লেভেল ওয়ান অপরাধের ক্ষেত্রে সরকারি ভাবে খেলোয়াড়কে আইসিসি’র শাস্তির মুখে পড়তে হয়। তা থেকে পরিত্রাণ পাননি খলিলও। তাইতো এবারের যাত্রাতে সতর্ক করার পাশাপাশি একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হয়েছে খলিলকে।

প্রসঙ্গত, আইসিসি’র কোড অফ কন্ডাক্টের অনুচ্ছেদ ২.৫ এ পরিষ্কারভাবে বলা আছে যে, আন্তর্জাতিক ম্যাচে কোনও ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার পর যদি বোলার তাঁর প্রতি আগ্রাসী প্রতিক্রিয়া দেয় (অঙ্গভঙ্গি বা অ্যাকশন) তাহলে তাঁকে শাস্তির আওতায় আনা হবে।

Facebook Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here